1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
নিম্নআয়ের মানুষ ঠকিয়েই কর্ণফুলী মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ ইমরান খানকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২৮ অক্টোবর থেকে ঢাকায় ফ্লাইট চালাবে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স সৌদি বাদশাহকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন যুবরাজ রাজধানীতে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে গ্রেফতার ৭২ টস হেরে ব্যাটিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ‘বিদ্রূপের শিকার’ শামির পাশে শচীন-শেবাগ-রাহুল গান্ধী ডাকাতির মামলায় জামাই-শশুর গ্রেফতার ১১ দিন পরে সেই বৃদ্ধ মা-কে নিজ বাড়িতে নিলেন ছেলেরা সিরাজগঞ্জে স্কুলছাত্রী হত্যা মামলায় দুইজনের যাবজ্জীবন গণিত অলিম্পিয়াডে ঝিনাইদহের মেয়ে অনন্য নজির গড়লেন বেনাপোলে বিষাক্ত রাসেল ভাইপা সাপ উদ্ধার নোয়াখালীতে সহিংসতার ঘটনায় জবানবন্দিতে বিএনপির বুলুসহ ১৫ জনের নাম নুরের নতুন দলের আত্মপ্রকাশ, নাম বাংলাদেশ গণ অধিকার পরিষদ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার গড়েয়ায় সম্প্রীতি সমাবেশ

অর্থনীতিতে শীর্ষ ১০-এ জায়গা নিতে মরিয়া তুরস্ক

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট : শনিবার, ১৩ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১০২ বার দেখা হয়েছে

করোনা মহামারির কারণে ২০২০ সালে বিপর্যস্ত ছিল তুরস্কের অর্থনীতি। কিন্তু বর্তমানে বিশ্বের শীর্ষ ১০ অর্থনীতিতে নিজেদের জায়গা করে নিতে বড় বিনিয়োগ ও প্রকল্প নিয়ে এগোচ্ছে তুরস্ক। ক্ষমতায় আসার পর থেকেই শীর্ষ অর্থনীতি হওয়ার বাসনার কথা শোনাচ্ছিলেন দেশটির প্রেসিডেন্ট। দেশের প্রবৃদ্ধি ভালো অবস্থানে নিতে বহুমুখী উদ্যোগ নিয়ে কাজ করছে দেশটির সরকার। সম্প্রতি দেশটির মালাতিয়া প্রদেশে একটি সেতু উদ্বোধন করে এসব কথা জানান দেশটির প্রেসিডেন্ট। চলতি বছর (২০২১) ৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য রয়েছে তুরস্ক সরকারের।
তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, দেশকে শীর্ষ ১০-এ নিতে বৃহত্তম বিনিয়োগগুলোকে বৃহত্তম প্রকল্পে রূপান্তরের কাজ চলছে। পৃথিবীতে যত মেগাপ্রজেক্টের কাজ চলছে, তার অর্ধেকেরও বেশি বাস্তবায়ন হচ্ছে তুরস্কে। পাশাপাশি মহাকাশ প্রযুক্তি, হাইটেক আর কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে তুরস্কের কাজের তুলনা হয় না বলেও মনে করেন তিনি।
২০২০ সালের ডিসেম্বরে দেশটির মূল্যস্ফীতি ১৫ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছিল। সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে চলে গিয়েছিল নিত্যপণ্য। ঐ সময় মানুষ চাল আর পাস্তা কিনে মজুত করেছিল। জ্বালানি তেল আর সারের দাম বাড়ায় দেশটিতে বেড়েছে কৃষিকাজে খরচ। বৈরী আবহাওয়ায় ব্যাহত হয়েছে উত্পাদন। তুরস্কের মুদ্রা লিরার মান কমায় গেল বছর আমদানি খরচ পৌঁছেছিল ৯০০ কোটি ডলারে। করোনার কারণে ২০২০ সালের দ্বিতীয় প্রান্তিকে ১০ শতাংশ সংকুচিত হয় দেশটির অর্থনীতি। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরে এসে কিছুটা স্থিতিশীল হয় তুরস্কের অর্থনীতি। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) বলছে, চলতি বছর তুরস্কের অর্থনীতির ৬ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হবে। করোনার ক্ষতিও কাটিয়ে উঠবে দেশটি। চলতি বছর বাজেট ঘাটতি সাড়ে ৩ শতাংশে নেমে আসবে বলেও পূর্বাভাস দিয়েছে আইএমএফ।

অর্থনীতিবিদরা বলছেন, প্রেসিডেন্ট এরদোয়ানের প্রথমে দেশের মানুষের জীবনমান উন্নয়নে নজর দেওয়া প্রয়োজন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি