1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ০৭:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
দুই বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ অর্থ দেবে চীন জলাবদ্ধতা নিরসনে মেয়র তাপসের সফলতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে কারা? সরকারকে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের পরিকল্পিতভাবে কাজ করায় দেশের অর্থনীতি এখন শক্তিশালী: প্রধানমন্ত্রী বাজারে কাঁচা মরিচের ‘ঝাল’ বেড়েই চলছে ট্রাম্পকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে: এফবিআই রোববার বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে বৈঠকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা  একাদশে ভর্তি: শেষধাপেও কলেজ পাননি ১২ হাজার শিক্ষার্থী প্রধানমন্ত্রী, প্রধান বিচারপতি ও ওবায়দুল কাদেরকে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে সড়কের প্রকৌশলী শাহজাদার সংঘবদ্ধ দূর্নীতির সিদ্ধান্ত

কাতার বিশ্বকাপ: দক্ষিণ এশীয় ৬৫০০ শ্রমিকের মৃত্যু

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট : বুধবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২৭৬ বার দেখা হয়েছে

দক্ষিণ এশীয় ৬৫০০ শ্রমিকের মৃত্যুবিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য কাতারজুড়ে নানা অবকাঠামোগত নির্মাণকাজ চলছে । গত এক দশকে কাতারে দক্ষিণ এশিয়ার সাড়ে ছয় হাজারের বেশি অভিবাসী শ্রমিক মারা গেছেন। এ শ্রমিকরা বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, নেপাল ও শ্রীলঙ্কা থেকে সেখানে কাজ করতে গিয়েছিলেন।
২০২২ সালের ফুটবল বিশ্বকাপ আয়োজক হওয়ার সুযোগ পাওয়ার পর থেকে এসব মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।
মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) দ্য গার্ডিয়ান এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানায়।
সরকারি তথ্য থেকে জানা যায়, ২০১০ সালের ডিসেম্বর মাস থেকে এখন পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ার এ পাঁচটি দেশ থেকে কাতার যাওয়া অভিবাসী শ্রমিকদের মধ্যে প্রতি সপ্তাহে গড়ে ১২ জন মারা গেছেন।

ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল ও শ্রীলঙ্কার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত কাতারে এ চারটি দেশের মোট ৫ হাজার ৯২৭ অভিবাসী কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। কাতারের পাকিস্তানি দূতাবাস থেকে জানা গেছে, এ সময় কাতারে পাকিস্তানের ৮২৪ জন শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

কাতারে অভিবাসী শ্রমিকদের মৃত্যু এর চেয়ে আরও উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বেশি বলে ধারণা করা হচ্ছে। কারণ এ পাঁচটি দেশ ছাড়াও ফিলিপাইন, কেনিয়াসহ বিভিন্ন দেশ থেকে শ্রমিকরা কাতারে যান।

বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য কাতারজুড়ে নানা অবকাঠামোগত নির্মাণকাজ চলছে। এ ধরনের ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করার সময় দুর্ঘটনায় অধিকাংশ শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি