1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ০৫:১৯ পূর্বাহ্ন

দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী 

মুস্তাকিম নিবিড়
  • আপডেট : শনিবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ১৮১ বার দেখা হয়েছে
দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী 
যানজটের অভিশাপ থেকে আরেক ধাপ মুক্তি পেল নগরবাসী

মুস্তাকিম নিবিড়ঃ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার (২ সেপ্টেম্বর) দেশের প্রথম ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ১৯ দশমিক ৭৩ কিলোমিটারের মধ্যে বিমানবন্দর-ফার্মগেট ১১ দশমিক ৫ কিলোমিটার অংশের উদ্বোধন করেছেন।দীর্ঘ প্রতীক্ষিত এক্সপ্রেসওয়ে বর্তমান সরকারের মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে একটি।রবিবার সকালে যান চলাচলের জন্য এটি উন্মুক্ত করা হবে। এর সাহায্যে একটি গাড়ি ঘন্টায় ৬০ কিলোমিটার বেগে কাওলা থেকে ফার্মগেটে পৌঁছতে মাত্র ১০ মিনিট সময় লাগবে। যা একসময় কল্পনাও করা যায়নি। একটা সময়ে যানজটের কারণে জন ভোগান্তিতে যেনো অভিশপ্ত নগরী হয়ে উঠেছিল রাজধানী ঢাকা। নগরবাসী কখনো সময় ধরে কোন কাজ করতে পারেনি, সময় মত অ্যাম্বুলেন্স যেতে পারত না হাসপাতালে, শিক্ষার্থীরা দেশ যেতে পারত না শিক্ষালয়ে, পেশাজীবীরা যথাসময়ে  যেতে পারত না নিজ প্রতিষ্ঠানে। বিভিন্ন মেগা প্রজেক্টের মাধ্যমে অসংখ্য উড়াল সেতু, মেট্রোরেল মা খুব করেছে অনেকটা যানজট।  এখন এলিভেটেড এক্সপ্রেসও  চালু হাওয়ায় যানজটের ভোগান্তি থেকে আরেক ধাপ মুক্তি পেল নগরবাসী।বিদেশি বিনিয়োগে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারিত্বের (পিপিপি) আওতায় পরিবহন খাতে এটিই প্রথম প্রকল্প।এক্সপ্রেসওয়েটি প্ল্যাকার্ড ও পতাকা দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে। আগামীকাল (রবিবার) সকাল ৬টায় যান চলাচল শুরুর আগে এগুলো সরিয়ে নেওয়া হবে।প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী গাড়িটি টোল প্লাজায় টোল পরিশোধের পর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে কাওলা এলাকায় উত্তর প্রান্ত থেকে এক্সপ্রেসওয়েতে প্রবেশ করে।তিনি আগারগাঁওয়ের পুরাতন বাণিজ্য মেলা মাঠে নাগরিক সমাবেশে যোগ দিতে তেজগাঁও এলাকায় এক্সপ্রেসওয়ে থেকে নামেন।প্রকল্প কর্মকর্তারা বলছেন, প্রতিদিন প্রায় ৮০ হাজার যানবাহন ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে দিয়ে যেতে পারবে।এক্সপ্রেসওয়েটি ঢাকা শহরের উত্তর অংশের সঙ্গে মধ্য, দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব অংশের মধ্যে যোগাযোগ উন্নত করে শহরের অভ্যন্তরে এবং আশেপাশে ট্রাফিক সক্ষমতা বাড়াবে বলে আশা করা হচ্ছে।এর ফলে আশেপাশের ওভারলোডেড রাস্তাগুলোর যান চলাচলও সহজ হবে।সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, সম্পূর্ণভাবে সম্পন্ন হলে ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে রাজধানীর কাওলা থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুতুবখালী এলাকা হয়ে কুড়িল-বনানী-মহাখালী-তেজগাঁও-মগবাজার-কমলাপুর-সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত চলাচল করবে।এক্সপ্রেসওয়ে ব্যবহার করার জন্য যানবাহনগুলোকে টোল দিতে হবে। চারটি ক্যাটাগরিতে টোল আদায় করা হবে।প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস (১৬ আসনের কম) এবং মিনি-ট্রাক (৩ টনের কম) ৮০ টাকা, মাঝারি আকারের ট্রাক (৬ চাকা পর্যন্ত) এবং ৬ চাকার বেশি বড় ট্রাক যথাক্রমে ৩২০ টাকা এবং ৪০০ টাকা দিতে হবে।এদিকে, ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের কাওলা-ফার্মগেট অংশে ১৬বা তার বেশি আসন বিশিষ্ট সব বাস ও মিনিবাসকে দিতে হবে ১৬০ টাকা।এক্সপ্রেসওয়েতে মোটরসাইকেল, সাইকেল ও থ্রি-হুইলার চলাচলের অনুমতি দেওয়া হবে না।

ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে প্রকল্পটি ২০১১ সালে হাতে নেওয়া হয়েছিল।২০১৩ সালের ১৫ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষ প্রকল্পের বিনিয়োগকারী কোম্পানি ফার্স্ট ঢাকা এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে কোম্পানি লিমিটেডের সাথে একটি সংশোধিত চুক্তি সই করে।এটি থাইল্যান্ড ভিত্তিক ইতালিয় থাই ডেভেলপমেন্ট পাবলিক কোম্পানি লিমিটেড (৫১ শতাংশ), চায়না শানডং ইন্টারন্যাশনাল ইকোনমিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল কোঅপারেশন গ্রুপ (৩৪ শতাংশ) এবং সিনোহাইড্রো করপোরেশন লিমিটেড (১৫ শতাংশ) এর অংশীদারিত্বে নির্মিত হচ্ছে।প্রকল্পটি তিন ধাপে শেষ হচ্ছে। বনানী পর্যন্ত প্রথম অংশের ৯৮ শতাংশ এবং বনানী থেকে মগবাজার পর্যন্ত ৫৪ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে।এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে ঢাকার উত্তর থেকে দক্ষিণে বিকল্প সড়ক হিসেবে কাজ করবে। এটি হেমায়েতপুর-কদমতলী-নিমতলী-সিরাজদিখান-মদনগঞ্জ-ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক-মদনপুরকে সরাসরি সংযুক্ত করবে।অন্যদিকে, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চলের যানবাহন ঢাকায় প্রবেশ না করে সরাসরি উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলে প্রবেশ করতে পারবে। যার ফলে ঢাকায় যাতায়াতের সময় ও যানজট কমবে।প্রকল্প কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তারা যানবাহন চলাচল নির্বিঘ্ন করতে কুড়িল এলাকায় একটি নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র স্থাপন করেছে।চীনা ফার্ম চায়না শানডং ইন্টারন্যাশনাল ইকোনমিক অ্যান্ড টেকনিক্যাল করপোরেশন, পিপিপি প্রকল্পের তিনটি ব্যক্তিগত অংশীদারের মধ্যে একটি নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র পরিচালনা করবে।কুড়িল, বনানী, মহাখালী ও তেজগাঁও হয়ে বিমানবন্দর-ফার্মগেট অংশটি শহরের অন্যতম ব্যস্ত রুট বিমানবন্দর থেকে আসা-যাওয়ার বিকল্প রুট হিসেবে কাজ করবে।১৫টি র‌্যাম্প সহ এটি যানবাহনগুলোকে যানজটপূর্ণ রাস্তা এড়িয়ে চলতে সহায়তা করবে। আজ ১৩টি র‌্যাম্প খোলা হয়েছে।সূত্র অনুসারে, অন্যান্য যানবাহন শুরুতে ঘন্টায় সর্বোচ্চ ৬০ কিলোমিটার গতিতে চলাচল করবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি