1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৪৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
পরিবেশ রক্ষায় ঐক্য পৃথিবীকে বাঁচাবে: ড. হাছান মাহমুদ বাংলাদেশি সিনেমা থেকে বাদ পড়লো সানি লিওনের আইটেম গান হাঁটুর হাড়ে ক্ষত: আরও অপেক্ষায় থাকতে হবে মেসিকে টেড্রোসকে ডব্লিউএইচও প্রধান হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদে সমর্থন বিসিবি নির্বাচনে মনোনয়ন তুললেন পাইলট ‘বিয়ে ছাড়াও মানুষের জীবনে আরো অনেক কিছু আছে’ এবার দীঘির নায়ক বনি সেনগুপ্ত যুক্তরাষ্ট্র থেকে আসছে আরো ২৫ লাখ টিকা সিআরবি নিয়ে তথ্যগত ভুল হচ্ছে কিনা সেটি খতিয়ে দেখা দরকার : রেলমন্ত্রী অসাংবিধানিক সরকার আনতে জল ঘোলা করছে বিএনপি-জামায়াত: ইনু শনিবার থেকে শাহজালাল বিমানবন্দরে কোভিড পরীক্ষা ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে আরও ১৮৯ জন হাসপাতালে ভর্তি করোনায় আরও ৩১ মৃত্যু, শনাক্ত ১,২৩৩ স্কুলে এসে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার প্রমাণ পাওয়া যায়নি: শিক্ষা উপমন্ত্রী বিএনপির লক্ষ্য নিজেদের পকেটের উন্নয়ন: কাদের

ধান সংরক্ষণের জন্য ৩০টি আধুনিক সাইলো নির্মাণ করবে সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : বুধবার, ৯ জুন, ২০২১
  • ৪৮ বার দেখা হয়েছে

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) ধান সংরক্ষণের জন্য ৩০টি আধুনিক সাইলো নির্মাণে ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকাসহ প্রায় ৬ হাজার ৬৫১ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ১০টি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে।

মঙ্গলবার (৮ জুন) এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত এর বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। বৈঠকে এনইসি চেয়ারপার্সন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি সভাপতিত্ব করেন।

বৈঠক শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বৈঠকে মোট ৬ হাজার ৬৫১ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে মোট ১০টি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

এর মধ্যে মধ্যে ৫ হাজার ২১৯ কোটি ৮১ লাখ টাকা সরকার দেবে, সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ন ৭৯৮ কোটি ৩ লাখ টাকা এবং বিদেশি ঋণ থেকে আসবে ৬৩৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা।

সাইলো প্রকল্প সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, প্রাথমিকভাবে ৩০টি ইস্পাত সাইলো নির্মিত হবে এবং পরে এর সংখ্যা বাড়ানো হবে।

পরিকল্পনা কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, ৫ হাজার মেট্রিক টন আধুনিক সাইলোতে ধান শুকানো, সংরক্ষণ ও আনুষঙ্গিক সুবিধা থাকবে।

প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য হলো সরকারি খাদ্য ব্যবস্থাপনায় দেড় লাখ মেট্রিক টন ধারণক্ষমতা বাড়ানো, সরকারি খাদ্য ব্যবস্থাপনায় আধুনিক প্রযুক্তির অভিযোজন, কীটনাশকবিহীন মজুদ ব্যবস্থার মাধ্যমে দুই থেকে তিন বছর শস্যের পুষ্টিমান বজায় রাখা হবে।

খাদ্য মন্ত্রণালয়েরর অধীনে ২০২৩ সালের মধ্যে ২৪টি জেলার অন্তর্গত ৩০টি উপজেলায় প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হবে।

যেসব উপজেলা বা পৌর এলাকায় প্রকল্পটি নির্মাণ করা হবে সেগুলো হলো কিশোরগঞ্জের কটিয়াদি, টাঙ্গাইলের মির্জাপুর, টাঙ্গাইল সদর, ফরিদপুর সদর, ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট জামালপুরের মেলান্দহ, শেরপুরের শ্রীবর্দী উপজেলায় বাস্তবায়িত হবে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর, নোয়াখালী সদর,  কুমিল্লা সদর, দিনাজপুর সদর, বিরল, ঠাকুরগাঁও সদর, পঞ্চগড়ের বোদা, লালমনিরহাটের হাতিবান্দা, নওগার শিবপুর, রানীনগর, পাবনার ঈশ্বরদী, বগুড়ার শেরপুর, নন্দীগ্রাম, জয়পুরহাচের ক্ষেতলাল, সিলেটের কানাইঘাট, হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ,  সুনামগঞ্জ সদর, নড়াইল সদর, কুষ্টিয়ার কুমারখালী, পটুয়াখালী সদর, কলাপাড়া, ভোলার চরফ্যাশন।

মান্নান বলেন, প্রধানমন্ত্রী দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বিশেষ ভোলা, পটুয়াখালী ও বরগুনায় এই জাতীয় আধুনিক সাইলো নির্মাণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিয়েছেন। যেহেতু এসব জায়গায় প্রচুর ধান হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি