1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
  3. [email protected] : lalashimul :
সোমবার, ০১ মার্চ ২০২১, ০৭:০৪ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
‘যুক্তরাষ্ট্রের নেতারা কেউ আল জাজিরার প্রতিবেদনের কোনো কথা ওঠাননি’ এখন গাছের পাতায় পাতায় আওয়ামী লীগ: শামীম ওসমান প্রেমিককে বীয়ে করার জন্য সন্ত্রাসীদের দিয়ে নিজের স্বামীকে খুন প্রথমবারের মতো একসাথে পথচলা আমান-প্রিয়াঙ্কার স্বর্ণ-টাকাসহ সন্তান নিয়ে প্রবাসীর স্ত্রী উধাও! ৭ মার্চের ভাষণ ছিলো মুক্তিযুদ্ধের প্রেরণার উৎস : তথ্য প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ প্যারামেডিকেল ডাক্তার এসোসিয়েশনের সাবেক সেক্রেটারির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ মাদারীপুর পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগ প্রার্থী খালিদ হোসেন ইয়াদ বিজয়ী রায়পুর পৌরসভা নির্বাচনে গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট মেয়র নির্বাচিত হয়েছে হবিগঞ্জে আওয়ামী লীগ প্রার্থী আতাউর রহমান সেলিম মেয়র নির্বাচিত

নগরে বসন্তের আগমন

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : রবিবার, ১৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২২ বার দেখা হয়েছে

খুব সকালে ঘুম থেকে উঠেই বৃক্ষের দিকে তাকানো। সেখানে আজ নতুন ফুল।
সেই ফুল হাতে নিয়ে হেঁটে চলা নগরের রাস্তায়। নতুন ফুলের মাতাল ঘ্রাণে পুরনো পাতারা ঝরে পড়ে গাছ থেকে। আবির এসে ছুঁয়ে যায় টোল পড়া গাল। তার সঙ্গে দূর থেকে কোকিলের সুরের মতো ভেসে আসে- বসন্ত এসে গেছে!
সত্যিই তাই, সব স্বপ্ন আর অপেক্ষা পূর্ণ করে অবেশেষে বসন্ত এলো। দিনক্ষণ মেপে, অনেকটা উচ্ছলাতা নিয়ে বসন্ত এলো নগরে। তারপর বাদ্যযন্ত্র চতুরঙ্গীর সুরে সে ধার দিলো নাগরিক জীবনের চঞ্চলতায়। বসন্ত ভালোবাসা মানুষগুলো তাকে বরণ করে নিলো নানান আয়োজনে।
রোববার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সকালে জাতীয় বসন্ত উদযাপন পরিষদের আয়োজনে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের উন্মুক্ত মঞ্চে অনুষ্ঠিত হলো বসন্ত উৎসব। তাতে জীবনের সীমাবদ্ধ বৃত্তকে পেরিয়ে গাওয়া হলো মলয় বাতাসের গান।

আয়োজনে প্রথমেই সুর তোলেন যন্ত্রশিল্পী দীপেন সরকার তার চতুরঙ্গীতে। এরপর সম্মেলক সঙ্গীত ‘ফুল ফাগুনের এলো মরসুম’। ফাল্গুন আর ভালোবাসার মিশ্রণে আবৃত্তি করেন বাচিক শিল্পী ভাস্বর বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাগুনের মোহনায় ততক্ষণে দর্শক সারি পরিপূর্ণ হয়েছে বসন্ত ভালোবাসা মানুষের লাল আর বাসন্তী রঙের সাজে। শিল্পীদের সঙ্গে গুণগুণিয়ে সুর ওঠে- বসন্ত জাগ্রত দ্বারে!
আটপৌরে নগর-যান্ত্রিকতায় বসন্তের মতো আর কোনও ঋতু সম্ভবত এতোটা শিহরণ জাগাতে পারে না। বসন্তই সম্ভবত এখনও পারে বর্ণিলতায় ভরিয়ে দিতে। রঙে, গন্ধে, আলোয়, মলয়ে অসীমান্তিক নৈসর্গিকতায় ভাসিয়ে দিতে পারে জীবনের সীমাবদ্ধতাকে। উৎসবের বসন্ত কথন পর্বে সেসব কথাই বলেন বিশিষ্ট জনেরা।
বসন্ত উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে বিশিষ্ট নাট্যজন ও বীর মুক্তিযোদ্ধা নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু বলেন, ষড়ঋতুর সবথেকে আনন্দময় যে ঋতুতি, সেই বসন্ত আমরা উদযাপন করছি বসন্ত উৎসব পালনের মধ্য দিয়ে। বসন্ত নিশ্চিতভাবে সেরা ঋতু। সেই সেরা ঋতু বিকশিত হয় নানাভাবে; ফুলে এবং পাখির কণ্ঠে তার আগমনী গান দিয়ে। নানা রঙ্গে রঞ্জিত হয় বসুধা, পাখির কলতানে মুখরিত হয় প্রকৃতি। আর এইভাবেই বিকশিত হয় মানুষ। আসুন অতিমারিকে পাশে ঠেলে আমরা এগিয়ে যাই বসন্তের অনুপ্রেরণায়।

আলোচনায় মানজার চৌধুরী সুইট বলেন, বাংলার নতুন পঞ্জিকা অনুযায়ী গত বছর থেকে আমরা ১৪ তারিখে পহেলা ফাল্গুন উদযাপন করছি। আজকে ভালোবাসা এবং বসন্তের যে মাখামাখি, তা আপনাদের সঙ্গে ভাগ করতে চাই। রবীন্দ্রনাথের হাত ধরেই আমরা এই পথে এগিয়েছিলাম, উপমহাদেশের ঋতুর উৎসবে। আমরা আপনাদের নিয়ে বসন্তের অবগাহনে মেতে উঠতে চাই। বসন্তের যে রঙের ছটা, তা সবার ঘরে ঘরে পৌঁছে যাক, বর্ণিল যে আনন্দ, সেটিই আমাদের কাম্য।

স্থপতি শফি উদ্দিন আহমেদ বলেন, এবছর করোনা কালের বছর। তবু বসন্ত তার কাল নিয়মে চলে এসেছে। আমরাও সকলে এই বসন্ত পালন করে সেই করোনার যাতনা দূর করতে চাই।
কাজল দেবনাথ বলেন, আমরা বাংলাদেশের মানুষ অত্যন্ত ভাগ্যবান। পৃথিবীর কোথাও কিন্তু ষড়ঋতু নেই। আর এই ছয় ঋতুর মধ্যে বসন্ত একেবারে ঋতুরাজ। তরুণ প্রজন্মের জন্য বলতে চাই- প্রকৃতি আমাদের আসল জায়গা। আমাদের যে অর্জন তার সবকিছুই প্রকৃতির কাছ থেকে। আসুন আমরা নিজেদের প্রকৃতির মধ্যে বিলিয়ে দিই।
বসন্ত কথন শেষে শুরু হয় আবির মাখার পর্ব। তারপর একে একে মঞ্চে উঠে আসে বসন্তের গান, নৃত্য। তা থেকে বাদ পড়েনা আদিবাসী নৃ-গোষ্ঠী সংস্কৃতিও। সাঁওতাল নৃত্যের সঙ্গে বেজে ওঠে- ‘শালগাছে ফুটেছে সারজম, মহুয়ায় ফুটেছে মাতকম’। সাঁওতালি ভাষার সে সুরে বসন্তের এ উৎসবে প্রকৃতির সঙ্গে একাকার হয়ে যার সমস্ত মানুষেরা।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি