1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১০:৫৫ অপরাহ্ন

পাকমন পিপলস পার্টির তত্ত্ব এবং স্বাধীনতা দিবস পালিত

ওমর ফারুক রবিনঃ
  • আপডেট : সোমবার, ১ জুলাই, ২০২৪
  • ৪১ বার দেখা হয়েছে

পাকমন পিপলস পার্টির সভাপতি দার্শনিক মোঃ জাহিদুল হক (জাহেদ) দলের তত্ত্ব এবং স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে, পাকমন পিপলস পার্টি জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আজ বিকেলে এক সমাবেশ করেছে।পাকমন পিপলস পার্টির সভাপতি বক্তবে দেশের চরম দূর্দাশার কথা উল্লেখ করে বলেন, তার নির্দেশিত দর্শন তত্ত্ব সমাজনীতি এবং গনতন্ত্র প্রতিষ্টার মাধ্যমে দেশের সার্বিক রাজনৈতিক সংকট ও অর্থনৈতিক সংকট সমাধান করতে হবে। দার্শনিক মোঃ জাহিদুল হক (জাহেদ) এর প্রনিত সমাজনীতি “যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ, প্রয়োজনে অনুযায়ী অর্থ এবং অর্জিত সম্পদের পূর্ণ ভোগদক্ষলই হচ্ছে সমাজনীতি”
উল্লেখ্য দার্শনিক ১৯৭৮ সালের ১লা জুলাই উপরোক্ত সমাজনীতির তত্ত্ব রচনা করেন বলে জানিয়েছেন।
মানুষ যোগ্যতা অনুযায়ী কাজ পেলে প্রয়োজনীয় অর্থ পেলে ভোগদখলের সুষ্ঠ আইন শৃঙ্খলা থাকলে জাতীয় রাজনীতিতে কোন দফার রাজনীতির প্রয়োজন হয় না বলে জানিয়েছেন।

পাকমন পিপলস পার্টির গনতন্ত্রের কার্যকরী রুপ রেখা:

গনতন্ত্রেও সংজ্ঞাঃ “জনগন সরাসরিভাবে রাষ্ট্রের শাসক ইহাই গনতন্ত্র”

(ক) প্রত্যক্স গনতন্ত্র: জনগণ সরাসরি নীতি বা আইন রচনা করবে কিন্তু রচিত আইন অবশ্যই বিজ্ঞানভিত্তিক, ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক দৃষ্টিভঙ্গী অনুযায়ী রাষ্ট্রের স্বার্বভৌমত্বে পরিপূর্ণ হতে হবে।
(খ) পন নির্দেশ বা (Referendum): পার্লামেন্ট কর্তৃক প্রণীত কোন আইন বা আইনের খসড়া সংবিধানের সংশোধনী প্রস্তাব জনবল বা ভোটারদের মতামত গ্রহণ।
(গ) সাম্য ও স্বাধীনতা: ব্যক্তি স্বাধীনতা ও মানবতার পূর্ণ নিশ্চয়তাসহ সাম্য, ও ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি।
(ঘ) আইনের নিরক্ষেপ ও নৈর্ব্যক্তিক শাসনের প্রবর্তন এবং সমাজনীতি অনুযায়ী নিজ ধন সম্পদ নিয়ে সমাজ অধিকার কায়েম।

দার্শনিক মোঃ জাহিদুল হক (জাহেদ) দেশের বিপন্ন স্বাধীনতা এবং সার্ববহুমত রক্ষা ও পূর্নতা অর্জনের জন্য ১৯৯৬ সালের ২৪ এ মে, পাকমন পিপলস্ পার্টির রাজনৈতিক রণকৌশল জাতীয় ছয় দফা প্রনয়ন করেন বলে জানিয়েছেন।

পাকমন পিপলস্ পার্টির রাজনৈতিক রণকৌশল জাতীয় ছয় দফা:
১. ফাঁরাক্কসহ ৫৪টি নদীর উজানের বাঁধ ভারত সরকারকে ভেঙ্গে ফেলতে হবে। উল্লেখ্য, ২৪ মে, ‘৯৬ থেকে পরবর্তীতে ভারত কর্তৃক আরো বাঁধ নির্মাণ হলে তা ভেঙ্গে ফেলতে হবে।।
২. গত ২১ বৎসরে উক্ত বাঁধ সমূহের কারণে ক্ষতিপূরণ স্বরুপ ৭৪ হাজার কোটি টাকা ভারত সরকারকে প্রদান করতে হবে। (উল্লেখ্য, ২৪শে মে ‘৯৬ থেকে পরবর্তী প্রতি বৎসরের জন্য দশ হাজার কোটি টাকার অংক যোগ হতে থাকবে)
৩. ঢাকাস্থঃ ভারতীয় দূতাবাস বন্ধ করে দিতে হবে এবং সকল প্রকার কূটনৈতিক তৎপরতা ছিন্ন করতে হবে।
৪. পদ্মা, কর্ণফুলি, মেঘনা ও যমুনা: ‘পাকমন’ ইউনিয়ন (ইউপিআরএস) অঞ্চল সমূহ: বাংলা, বিহার, উড়িষ্যা, মেঘালয়, ত্রিপুরা, আসাম, নেপাল, ভুটান, সিকিম, অরুনাঞ্চল প্রভৃতি থেকে ভারতীয় সেনাবাহিনী অপসারণ করে UPSR কে পূর্ণ স্বীকৃতি দিতে হবে।
৫. বঙ্গভূমি আন্দোলন অপকর্ম তৎপরতা বন্ধ করতে হবে।
৬. শান্তি বাহিনীর অপকর্ম তৎপরতা বন্ধ করতে হবে। সকল প্রকার ট্রানজিট চুক্তি বাতিল করতে হবে।
সমাবেশে, আরোও বক্তব্য রাখেন দলের মহা সচিব খন্দকার আশরাফ সিদ্দিকি, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ আব্দুর রহমান, দলের যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক বীর মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম, দলের ঢাকা দক্ষিনের সভাপতি মোঃ রানা ইসলাম, দলের ঢাকা দক্ষিনের সাধারণ সম্পাদক ডা. জাকির হোসেন, পাকমন ওলামা দলের সভাপতি বিশিষ্ট আলেম খন্দকার মোঃ নূরুল আমীন, পাকমন শ্রমীক দলের সভাপতি মোঃ মোঃ ফেরদৌস খান এবং পাকমন শ্রমীক দলের সহ সভাপতি সাকিব খাঁন প্রমুখ

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি