1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১২:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
উন্নত বাংলাদেশ গড়তে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি অপরিহার্য : রাষ্ট্রপতি একদিনে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৪৮০ ‘বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে’ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে নতুন আইজিপির শ্রদ্ধা এক দিনে রেকর্ড ৬৩৫ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি দুর্গোৎসব অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি : ডেপুটি স্পিকার ৪ বছরেও সড়ক আইন বাস্তবায়নে বিধিমালা হয়নি : ইলিয়াস কাঞ্চন তোয়াব খান ছিলেন বাংলাদেশের সাংবাদিকতা জগতের পথিকৃৎ : রাষ্ট্রপতি ইরানে পুলিশ স্টেশনে হামলায় বিপ্লবী গার্ডসের কর্নেলসহ নিহত ১৯ এ বছর এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি : শিক্ষামন্ত্রী

প্রস্তাবিত ইউনানী-আয়ুর্বেদিক চিকিৎসাঃ প্রস্তাবিত ইউনানী-আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শিক্ষা আইনে ভয়াবহ অসঙ্গতি

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : রবিবার, ২৭ জুন, ২০২১
  • ২২৭ বার দেখা হয়েছে
প্রস্তাবিত ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন (চূড়ান্ত), ২০২১- অসঙ্গতি বলে দাবি সংশ্লিষ্টদের। এতে চরম ক্ষুব্ধ খাত সংশ্লিষ্ট অসংখ্য ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান। তাদের মতে, প্রস্তাবিত এই আইন পাস হলে মাঠ পর্যায়ের ১২ হাজার চিকিৎসক বেকারের তালিকায় নাম লেখাতে বাধ্য হবেন। তাদের চিকিৎসা পেশা পড়ে যাবে চরম অনিশ্চয়তায়। কেননা প্রস্তাবিত আইনের দ্বিতীয় অধ্যায়ে ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক বোর্ড এবং তৃতীয় অধ্যায়ে বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কাউন্সিল গঠন করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু একই আইনের অধীনে দুটি সংস্থা প্রতিষ্ঠা করার বিধান থাকা বিদ্যমান আইনি রীতির সঙ্গে মারাত্মকভাবে সাংঘর্ষিক। সংশ্লিষ্টদের মতে, প্রস্তাবিত আইনের আগের খসড়ার ৬ষ্ঠ অধ্যায়ে ইউনানী-আয়ুর্বেদিক খাতের উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণার বিষয়ে বিস্তারিত নির্দেশনা দেয়া ছিল। কিন্তু নতুন প্রস্তাবিত খসড়ায় পুরো ৬ষ্ঠ অধ্যায়ের উচ্চ শিক্ষা ও গবেষণা সংক্রান্ত নির্দেশনা বাদ দেয়ায় ইউনানী-আয়ুর্বেদিক শিক্ষা ব্যবস্থার বিকাশ রুদ্ধ ও পঙ্গু হতে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ ইউনানী মেডিকেল এসোসিয়েশনের মহাসচিব আখ মাহবুব রহমান বলেন, বিদ্যমান অর্ডিন্যান্স ১৯৮৩ অনুযায়ী, ইউনানী আয়ুর্বেদিক চিকিৎসকদের সরকারি, বেসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে মেডিকেল অফিসার হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার অধিকার এবং নিজস্ব চেম্বারে রোগী দেখা ও ফি গ্রহণের ক্ষমতা দেয়া আছে। কিন্তু প্রস্তাবিত আইনের চূড়ান্ত খসড়ায় এই বিধান বিলুপ্ত করে আইন আমান্যকারীদের মোবাইল কোর্টে দণ্ড আরোপের ব্যবস্থা, ১ বছরের কারাদণ্ড অথবা নগদ এক লাখ টাকা অর্থদণ্ড; এমনকি জামিন অযোগ্য শাস্তির বিধান সংযোজন করা হয়েছে। এতে চিকিৎসকদের অধিকার যেমন খর্ব হবে, ঠিক তেমনি সংকুচিত হবে ইউনানী আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার বিকাশ।
বাংলাদেশ আয়ুর্বেদিক ওষুধ শিল্প সমিতির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন, প্রস্তাবিত আইনে ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক বোর্ড এবং বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিকেল কাউন্সিলের কার্যাবলী পর্যালোচনা করে দেখা যায়, দুটি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে মারাত্মক বিরোধের বিধান সংযোজন করা হয়েছে। ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক বোর্ডকে ডিপ্লোমা ইউনানী আয়ুর্বেদিক কলেজের স্বীকৃতি এবং নিয়ন্ত্রণের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। পক্ষান্তরে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানসমূহের একাডেমিক মান নিয়ন্ত্রণ, তদারকি, পরিদর্শন, নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা ন্যস্ত করা হয়েছে বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক মেডিক্যাল কাউন্সিলের ওপর। ফলে দুটি সংস্থাকে ক্ষমতা প্রয়োগের ক্ষেত্রে দ্বন্দ্ব ও সাংঘর্ষিক অবস্থার মধ্যে ঠেলে দেয়া হয়েছে। এই ক্ষমতার দ্বন্দ্বে নিশ্চিতভাবেই ইউনানী-আয়ুর্বেদিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের মধ্যে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরি হবে। আর সংস্থা দুটি’র মধ্যে তৈরি হবে ভারসাম্যহীনতা। একই আইনে দুই সংস্থার এ রকম নিয়ন্ত্রণ ক্ষমতা দেয়ার বিধান বাংলাদেশের আর কোনো আইনে নেই।সূত্র জানায়, বিদ্যমান বাংলাদেশ ইউনানী অ্যান্ড আয়ুর্বেদিক প্র্যাকটিশনার্স অর্ডিন্যান্স-১৯৮৩-এর হালনাগাদ ও বাংলা অনুবাদ করে নতুন আইন তৈরির কাজ শুরু হয় ২০১৩ সালে। এরপর মন্ত্রণালয়ে উপস্থাপন করা হয় ‘বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা পদ্ধতি আইন-২০১৬’-এর খসড়া। এ খসড়াকে যাচাই-বাছাই করে চূড়ান্ত করতে ২০১৮ সালের ১৫ই মে তৎকালীন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেককে আহ্বায়ক করে গঠন করা হয় ৮ সদস্যবিশিষ্ট কমিটি। যাচাই-বাছাই সাপেক্ষে ২০১৮ সালের ১৮ই অক্টোবর উক্ত কমিটি ‘বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা পদ্ধতি আইন-২০১৬’-এর খসড়া অনুমোদন করে পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণের সুপারিশ করে। কিন্তু ২০২০ সালের ৫ই আগস্ট হঠাৎ করে ‘বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা পদ্ধতি আইন-২০১৬’-এর অনুমোদনকৃত খসড়াকে ধামাচাপা দিয়ে বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন-২০২০ শিরোনামে আরেকটি হ-য-ব-র-ল এবং ভয়াবহ সাংঘর্ষিক খসড়া আইন স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি