Warning: Creating default object from empty value in /home/jatioart/public_html/wp-content/themes/NewsFreash/lib/ReduxCore/inc/class.redux_filesystem.php on line 29
বগুড়ায় ৩ দিনে ৫০ লাখ টাকার ফুল বিক্রির লক্ষ্য ফুল ব্যবসায়ীদের – দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি
  1. bdweb24@gmail.com : admin :
  2. arthonite@gmail.com : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৩:১৫ পূর্বাহ্ন

বগুড়ায় ৩ দিনে ৫০ লাখ টাকার ফুল বিক্রির লক্ষ্য ফুল ব্যবসায়ীদের

রিপোর্টার
  • আপডেট : সোমবার, ১২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৪
  • ৩৭ বার দেখা হয়েছে

মমিন রশীদ শাইন বগুড়াঃ 

পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবস ও ২১শে ফেব্রুয়ারীকে সামনে রেখে জমে উঠেছে বগুড়ায় ফুলের ব্যবসা। বছরের অন্য সময়ের তুলনায় ফেব্রুয়ারি মাসে বসন্তবরণ, ভালোবাসা দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে কেন্দ্র করে জমজমাট হয়ে ওঠে শহরের খোকন পার্কের ফুলের বাজার। তবে ফুলের জোগান থাকলেও দাম বেশি বলে অভিযোগ করছেন ক্রেতারা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, এই তিন দিবস যত এগিয়ে আসবে ফুলের দামও ততই বাড়বে। আশা করেছেন সারাবছর ধরে তারা যে ক্ষতির শিকার হন, বছরের এই সময়ে ফুল বিক্রি করে কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, ক্রেতাদের পছন্দের তালিকায় রয়েছে গোলাপের পাশাপাশি গাঁদা, রজনিগন্ধা, জারবেরা, জিপসি, চেরি, গ্লাডিওলাস। বর্তমানে প্রতিটি গোলাপ বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা, যা মাসখানেক আগেও বিক্রি হয়েছে মাত্র ৫ থেকে ১০ টাকায়। রজনীগন্ধা বিক্রি হচ্ছে প্রকারভেদে ১৮ থেকে ২০ টাকায়। এছাড়া গাঁদা ফুল বিক্রি হচ্ছে প্রতি হাজার ১হাজার থেকে ১৫শত টাকা পর্যন্ত। যা আগে ছিল ২শ’ থেকে ৩শ টাকা পর্যন্ত।

একজন ক্রেতা বলেন, বিশেষ দিনে ভালোবাসার মানুষকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে চান সবাই। তবে এখন দাম অনেক বেশি নেওয়া হচ্ছে, যে গোলাপ মাসখানেক আগে বিক্রি হয়েছে মাত্র ৫ টাকায়, বর্তমানে সেই গোলাপ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা দরে।

বগুড়া জেলা ফুল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক লক্ষণ দাস  বলেন, কাঁচামাল হওয়ার কারণে সারাবছর ধরে আমরা ফুল ব্যবসায়ীরা ক্ষতির শিকার হই, বছরের এই সময়ে ফুল বিক্রি করে কিছুটা পুষিয়ে নিতে পারবো। এই তিন দিবস যত এগিয়ে আসবে ফুলের দামও ততই বাড়বে। ধারণা করা হচ্ছে এবার তিন দিবসে বগুড়ায় অন্তত ৪০ থেকে ৫০ লাখ টাকার ফুল বিক্রি হতে পারে।

বগুড়া সদর উপজেলা কৃষি অফিসার বলেন, বগুড়ায় বাণিজ্যিকভাবে ফুলের চাষ না করার কারণে বিভিন্ন জেলা থেকে ফুল নিয়ে এসে চাহিদা পূরণ করা হয়। ফুলের দাম নিয়ন্ত্রণ রাখার জন্য বাজারগুলোতে প্রশাসনের নজরদারি প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

 

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি