1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৭:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
উন্নত বাংলাদেশ গড়তে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি অপরিহার্য : রাষ্ট্রপতি একদিনে করোনায় আরও ৫ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৪৮০ ‘বঙ্গবন্ধুর খুনি রাশেদ চৌধুরীকে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে’ বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে নতুন আইজিপির শ্রদ্ধা এক দিনে রেকর্ড ৬৩৫ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি দুর্গোৎসব অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের প্রতিচ্ছবি : ডেপুটি স্পিকার ৪ বছরেও সড়ক আইন বাস্তবায়নে বিধিমালা হয়নি : ইলিয়াস কাঞ্চন তোয়াব খান ছিলেন বাংলাদেশের সাংবাদিকতা জগতের পথিকৃৎ : রাষ্ট্রপতি ইরানে পুলিশ স্টেশনে হামলায় বিপ্লবী গার্ডসের কর্নেলসহ নিহত ১৯ এ বছর এসএসসি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়নি : শিক্ষামন্ত্রী

বিএনপি নেতা মীর নাসিরের ছেলে আত্মসমর্পণ করে কারাগারে

রিপোর্টার
  • আপডেট : মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫০২ বার দেখা হয়েছে

নিজস্ব প্রতিবেদক :
বিএনপির নেতা মীর মোহাম্মদ নাসির উদ্দিনের ছেলে মীর মোহম্মদ হেলালকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের একটি মামলায় কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার ঢাকার ২ নম্বর বিশেষ জজ আদালতের বিচারক এ এম এম রুহুল ইমরানের আদালতে আইনজীবীর মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করলে তা নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের বেঞ্চ সহকারী (পেশকার) দেওয়ান আশিক জানান, বিচারিক আদালত থেকে তিন বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত মীর হোলালের দণ্ড আপিল বিভাগে বহাল রাখেন। আজ তিনি আত্মসমর্পণ করে জামিনের প্রার্থনা করেছিলেন। যা আদালত নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন।

মামলার নথি থেকে জানা যায়, অবৈধ সম্পদ অর্জন এবং সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগে ২০০৭ সালের ৬ মার্চ মীর নাসির ও তার ছেলে মীর হেলালের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলায় বিচার শেষে একই বছরের ৪ জুলাই ঢাকার ২ নম্বর বিশেষ জজ মীর নাসির উদ্দিনকে ১০ বছরের দণ্ড দেন। একইসঙ্গে ৫০ লাখ টাকা অর্থদণ্ড, অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ডের আদেশ দেন। আর তার ছেলে মীর হেলালকে তিন বছরের কারাদণ্ড এবং ১ লাখ টাকার অর্থদণ্ড দেন। ওই রায়ের বিরুদ্ধে পিতা ও পুত্র হাইকোর্টে পৃথক আপিল করেন।

২০১০ সালের ১০ আগস্ট হাইকোর্ট মীর নাসিরের এবং একই বছরের ২ আগস্ট মীর হেলালের সাজা বাতিল করে রায় দেন। এরপর হাইকোর্টের ওই রায় বাতিল চেয়ে আপিল আবেদন করে দুদক।

২০১৪ সালের ৪ জুলাই আপিল বিভাগ হাইকোর্টের রায় বাতিল করে হাইকোর্টকে পুনরায় আপিল শুনানির নির্দেশ দেন। পুনরায় আপিল শুনানি শেষে ২০১৯ সালের ১৯ নভেম্বর হাইকোর্ট বিচারিক আদালতের রায় বহাল রেখে রায় দেন। একই সঙ্গে রায় প্রদানকারী বিচারিক আদালতে রায় পৌঁছানোর তিন মাসের মধ্যে আসামিদের আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন।

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি