1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
  3. [email protected] : lalashimul :
বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
আলজিয়ার্স চুক্তি লঙ্ঘনে ইরানকে যুক্তরাষ্ট্রের দিতে হবে ৩৭ মিলিয়ন ডলার ফুলবাড়ীতে ১৭১ বোতল ফেন্সিডিল ও ৯০ পিস ইয়াবাসহ ২ মাদক চোরাকারবারি গ্রেফতার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি না এলেও দলীয়ভাবে প্রার্থী দেবে আ. লীগ প্রথম ধাপে ৩৭১ ইউনিয়ন পরিষদে ভোট ১১ এপ্রিল প্রায় ১০ মাস কারাগারে থাকার পর মুক্তি পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর আমি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনির ষড়যন্ত্র ও রাজনীতির শিকার : উপাচার্য কলিমুল্লাহ দুই দেশের মধ্যে সব ইস্যুতেই আলোচনা হতে পারে : ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ‘বাংলাদেশ: এ সারপ্রাইজ ডিজিটাল লিডার ইন এশিয়া’ সাংবাদিকদের সাথে গাইবান্ধা পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলরদের মতবিনিময় রাত জেগে স্মার্টফোন ঘাঁটার অভ্যাস, জেনে নিন কী কী ক্ষতি হচ্ছে?

বেসরকারি হাসপাতালে টিকা বিক্রি: প্রধানমন্ত্রীর না

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • আপডেট : সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৫ বার দেখা হয়েছে

বেসরকারি হাসপাতালে টিকা বিক্রির যে পরিকল্পনা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় গ্রহণ করেছিল সেই পরিকল্পনা নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রী কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে যে, প্রধানমন্ত্রীর মূখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউসকে প্রধানমন্ত্রী জানিয়ে দিয়েছেন যে সরকার টিকা বিক্রি করবে না। টিকা জনগণের অধিকার এবং যেহেতু আমি জনগণকে ওয়াদা দিয়েছি যে বিনামূল্যে সব মানুষকে টিকা দিব কাজেই টিকা বেসরকারি হাসপাতালে বিক্রি করতে দেওয়া হবে না।

বেসরকারি মেডিকেল কলেজ অ্যাসোসিয়েশন এর পক্ষ থেকে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে আবদার করা হয়েছিল যে, তারা বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে টিকা প্রদান করতে চায় এবং তখন স্বাস্থ্যমন্ত্রী প্রস্তাব দিয়েছিলেন যে, বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে একটি নির্দিষ্ট দামে টিকা বিক্রির জন্য দেওয়া হবে। সরকার যে দামে টিকা কিনেছে তার থেকে ২ ডলার বেশি মূল্যে বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে টিকা বিক্রির প্রস্তাবনা প্রধানমন্ত্রীর বিবেচনার জন্য দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু স্বাস্থ্যমন্ত্রীর এই প্রস্তাবের বিরোধীতা করেছিলেন স্বয়ং স্বাস্থ্য সচিব মো. আবদুল মান্নান। এবং শেষ পর্যন্ত এটি প্রধানমন্ত্রী পর্যন্ত গড়িয়েছিল।

বেসরকারি হাসপাতালে টিকা বিক্রি করা যৌক্তিক হবে কিনা এ বিষয়ে শেষপর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী বেসরকারি হাসপাতালে টিকা বিক্রির বিষয়ে মতমত দেন নি। বাংলাদেশে গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সারাদেশে টিকাদান কর্মসূচি শুরু হয়েছে এবং প্রথম দিকে মানুষের এ টিকা নেয়ার বিষয়ে আড়ষ্টতা থাকলেও এখন মানুষ ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে টিকা নিচ্ছে এবং প্রতিদিন দেড় থেকে দুই লাখ মানুষ টিকা গ্রহণ করছে।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সূত্রগুলো বলছে যে, চল্লিশোর্ধ্ব বয়সের টিকাদান শেষ করার পরে ধীরে ধীরে ১৮ বছর পর্যন্ত যে সমস্ত নাগরিক আছেন তাদের সবাইকেই এ টিকার আওতাভুক্ত করা হবে এবং বছরব্যাপী এই টিকা প্রদান কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে। এর ফলে বাংলাদেশ করোনা থেকে মুক্তি পাবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, বাংলাদেশ প্রথম পর্যায়ের টিকা প্রদানের পরই বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে এই টিকার আওতায় আনা যায় কিনা সেটি বিবেচনা করবে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি