1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ০৬:৩২ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
ইভ্যা‌লি নি‌য়ে হতাশ না হওয়ার পরামর্শ নতুন এমডি’র অপপ্রচার করাই বিএনপির শেষ আশ্রয়স্থল : ওবায়দুল কাদের মন্দির-মণ্ডপে হামলা: নেপথ্যে কুমিল্লা সিটি মেয়রের ‘সহযোগী’ সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় জড়িতদের ছাড় নয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রফতানি পণ্যের উৎপাদন বাড়ানোর আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের মধ্যে ব্যবসায়িক সেতুবন্ধন গড়ে তুলবে বাংলাদেশ: প্রধানমন্ত্রী জন্মের পর থেকেই মিলবে জাতীয় পরিচয়পত্র নিম্নআয়ের মানুষ ঠকিয়েই কর্ণফুলী মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ ইমরান খানকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ২৮ অক্টোবর থেকে ঢাকায় ফ্লাইট চালাবে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্স সৌদি বাদশাহকে হত্যা করতে চেয়েছিলেন যুবরাজ রাজধানীতে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে গ্রেফতার ৭২ টস হেরে ব্যাটিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ‘বিদ্রূপের শিকার’ শামির পাশে শচীন-শেবাগ-রাহুল গান্ধী ডাকাতির মামলায় জামাই-শশুর গ্রেফতার

মাস্ক না পরলে পাঠিয়ে দেওয়া হচ্ছে কবরস্থানে!

রিপোর্টার
  • আপডেট : বৃহস্পতিবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৩৭৫ বার দেখা হয়েছে

ফিচার ডেস্ক : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে মাস্ক পরার গুরুত্ব ও প্রয়োজনীয়তা প্রায় নিয়মিতই বলে আসছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। মাস্ক পরলে মুখ থেকে নির্গত ড্রপলেট দূরে ছড়ায় না। তাই করোনায় আক্রান্তের ঝুঁকি কমে। আর মাস্ক সংগ্রহ ও পরা খুব একটা কঠিন কাজও নয়। অল্প দামে সার্জিক্যাল মাস্কে এখন বাজার সয়লাব। এরপরেও যারা মাস্ক পরছেন না তারা অন্যদের জন্য মারাত্মক ঝুঁকি বিবেচনায় নানা কর্তৃপক্ষ নানা শাস্তিমূলক পদক্ষেপ নিচ্ছে। ইন্দোনেশিয়াও তাই।
দেশটিতে এখনও যাদের টনক নড়েনি এমন লোকদের স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষ কবরে পাঠিয়ে দিচ্ছে! গেল ১১ সেপ্টেম্বর রাজধানী জাকার্তায় ঘটেছে এমন ঘটনা। মাস্ক পরতে রাজি না হওয়ায় ৮ জনকে স্থানীয় একটি কবরস্থানে করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতদের কবর খোঁড়ার শ্রমদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা যায়, এরা মাস্ক পরতে রাজি না হওয়ায় এমন দুর্দশা নেমে আসে তাদের ওপর।
এরকম শাস্তি কেন দেওয়া হলো এমন প্রশ্নের জবাবে স্থানীয় সরকারের কর্মকর্তা সুইয়োনো স্থানীয় পত্রিকা ট্রিবিউন নিউজকে জানান, কবরস্থানগুলোতে কর্মীর অভাব। সে সময় ওই কবরস্থানে মাত্র তিন জন কর্মী ছিলো। এদিকে শয়ে শয়ে মৃতদেহ আসছে। তাই এদের কাজে লাগানো হয়েছে। তাছাড়া সারাদিন কবরস্থানে কাজ করলে মনে করোনার ভয় আসতে পারে তাদের।
তিনি জানান, প্রতিটি কবরে দু’জনকে নিয়োগ করা হয়েছে। একজন মাটি খুঁড়েন আর অন্যজন কাঠের বোর্ড স্থাপন করেন। মাস্ক যারা পরেননি তাদের কেউকেই মৃতদের অন্তেষ্টিক্রিয়ায় অংশ নিতে দেওয়া হয়নি।
তবে এমন শাস্তির বিরুদ্ধেও জোর কথা উঠেছে। অনেকের দাবি— এরকম কবরস্থানে পাঠানোর কারণে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি