1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১২:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনামঃ
নারায়ণগঞ্জে ফের নৌকার মনোনয়ন পেলেন আইভী ডেল্টার অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে ওমিক্রন প্রতিরোধ করতে হবে: ডব্লিউএইচও ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের রক্তের সম্পর্ক : নৌপ্রতিমন্ত্রী অসীম ক্ষমতা শেখ হাসিনার নাই : পরিকল্পনামন্ত্রী শনিবার ঢাকায় বিশ্ব শান্তি সম্মেলন বস্ত্র খাত অর্থনীতি, সমাজ ও সংস্কৃতির অঙ্গ হিসেবে ভূমিকা রাখছে: প্রধানমন্ত্রী বিএনপি চায় খালেদা হাসপাতালে থাকুক: তথ্যমন্ত্রী ৫ ডিসেম্বরের মধ্যে দিয়াবাড়ি-আগারগাঁও রুটের ট্রায়াল ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘জাওয়াদ’: ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত করোনায় ৩ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ২৪৩ আর সনদধারী বেকার তৈরি করতে চাই না : শিক্ষামন্ত্রী প্রতিবন্ধীরা সমাজের বোঝা নয়: সমাজকল্যাণমন্ত্রী পঞ্চগড়ে প্রথম স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা ওড়ে: মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বিশ্বমানের রেলওয়ে করার লক্ষ্যে কাজ করছে সরকার: রেলমন্ত্রী বাংলাদেশ-পাকিস্তান টেস্ট ম্যাচ ৫০ টাকায়

লন্ডনে সাকার বাড়ি এখন বার্গম্যানের

রিপোর্টার
  • আপডেট : শনিবার, ৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ২১৮ বার দেখা হয়েছে

লন্ডনে যুদ্ধাপরাধে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বেশ সম্পদ রয়েছে। বাংলা ইনসাইডারের অনুসন্ধানে পাওয়া গেছে, লন্ডনে সাকা চৌধুরীর তিনটি বাড়ীর হদিস। শেয়ার বাজারে বিপুল বিনিয়োগ এবং ব্যাংকে গচ্ছিত টাকা। এই সব অর্থই দেখভাল করে এখন সাকা পুত্র। শুধু একটি ছাড়া। লন্ডনে অন্যতম অভিজাত এলাকা হিসেবে পরিচিত নাইটব্রীজ। নাইটব্রীজে সাকার অভিজাত বাড়ীটিতেই থাকে ড. কামাল হোসেনের জামাতা এবং যুদ্ধাপরাধীদের লবিষ্ট ডেভিড বার্গম্যান। নাইটব্রীজের অভিজাত এই বাড়ীতে ডেভিড বার্গম্যান থাকছেন ২০১৮ সাল থেকে। অনুসন্ধানে জানা গেছে, ডেভিড বার্গম্যান থাকলেও বাড়ীটির মালিকানা এখনও সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর নামে। লন্ডনে প্রপার্টি ট্রান্সফার বিভাগের তথ্যে তা দেখা যায়। সাকা চৌধুরীর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হবার পর, তার স্ত্রী ফরহাত চৌধুরী বাড়ীটি তার নামে হস্তান্তরের জন্য আবেদন করে। ঐ আবেদনটি এখনও চূড়ান্ত বিবেচনা হয়নি। কিন্তু বাড়ীটিতে ডেভিড বার্গম্যান সাকা চৌধুরীর ছেলের অনুরোধে ওঠেন। প্রায় ৭ হাজার স্কয়ার ফুটের ঐ বাড়ীতে ডেভিড বার্গম্যানের একটি ব্যক্তিগত স্টুডিও আছে।

উল্লেখ্য, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার প্রক্রিয়া শুরু হলে ২০১০ সালে লন্ডনে সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী সঙ্গে ডেভিড বার্গম্যানের প্রথম সাক্ষাত হয়। সাকার অনুরোধ, লন্ডনে অবস্থানরত একজন আইএসআই এজেন্ট ডেভিড বার্গম্যানকে সাকার কাছে নিয়ে যান। তখনও সাকার বিচার প্রক্রিয়া শুরু হয়নি। কিন্তু সাকা জানতেন তারও বিচার হবে। তবে, সাকা চৌধুরী লন্ডনে একাধিক ব্যক্তিকে বলেছিলেন তার ফাঁসি হবে না। তবে, যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য তিনি ডেভিড বার্গম্যানকে দায়িত্ব দেন। সেই সূত্রেই ডেভিড বার্গম্যান বাংলাদেশে আসেন। যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষে অযৌক্তিক লেখালেখির কারণে বার্গম্যান আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দণ্ডিত হন। এখন লন্ডনে তারেক জিয়া এবং যুদ্ধাপরাধী গোষ্ঠী যে বাংলাদেশ বিরোধী তৎপরতায় লিপ্ত, তার অন্যতম থিংক ট্যাংক হলো ডেভিড বার্গম্যান।

সূত্র : বাংলা ইনসাইডার

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি