1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
করোনায় আরও ৩৫ মৃত্যু, শনাক্ত ১,১৯০ পাকিস্তান ক্রিকেটকে খুন করল নিউজিল্যান্ড : শোয়েব আক্তার সংবিধানের আলোকেই আগামী দিনের নির্বাচন : কৃষিমন্ত্রী মাস্ক ছাড়াই যুক্তরাজ্যের মন্ত্রিসভার বৈঠক গ্রহণযোগ্য পন্থায় নির্বাচন কমিশন গঠন করা হবে : ওবায়দুল কাদের জলবায়ু নিয়ন্ত্রণে বিশ্ব নেতাদের প্রতি বাইডেনের আহ্বান মা হচ্ছেন কাজল চীন থেকে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা মোদির জন্মদিনে রেকর্ড দুই কোটি টিকা প্রয়োগ ভারতের শিক্ষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন ঠাকুরগাঁও জেলা জাতীয় ছাত্র সমাজের আলোচনা ও পরিচিতি সভা মাহফুজ আনাম ও শাহীন আনামের কুশপুত্তলিকা দাহ হিন্দু মহাজোটের ই-কমার্সের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা : ডিএমপি প্রধান চীন থেকে এলো সিনোফার্মের আরও ৫০ লাখ টিকা রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৬০

শয়তানের সত্য স্বীকার

অনলাইন ডেস্ক
  • আপডেট : বুধবার, ২৬ মে, ২০২১
  • ৫৪ বার দেখা হয়েছে

সুরা বাকারার ২৫৫ নম্বর আয়াত হলো আয়াতুল কুরসি। এ আয়াতের প্রতিটি বাক্যে আল্লাহর ক্ষমতা বর্ণনা করা হয়েছে। রসুল (সা) একে কোরআনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ও ফজিলতপূর্ণ আয়াত অভিহিত করেছেন।

হজরত আবু হুরায়রা (রা.) বলেন, ‘একদা রসুলুল্লাহ (সা.) আমাকে রমজানের জাকাতের প্রহরী নিযুক্ত করেন। আমার কাছে এক আগমনকারী এসে ওই মাল থেকে কিছু কিছু করে উঠিয়ে নিয়ে সে তার চাদরে জমা করতে থাকে। আমি তাকে ধরে ফেলি এবং বলি, তোমাকে আমি রসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে নিয়ে যাব। সে বলল, আমাকে ছেড়ে দিন। আমি খুবই অভাবী লোক। তখন আমি তাকে ছেড়ে দিই। সকালে রসুলুল্লাহ (সা.) আমাকে জিজ্ঞেস করেন, তোমার রাতের বন্দী কী করেছিল? আমি বলি, হে আল্লাহর রসুল! সে তার ভীষণ অভাবের অভিযোগ করায় তার প্রতি আমার দয়া হয় তাই আমি তাকে ছেড়ে দিই। রসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, সে তোমাকে মিথ্যা বলেছে। সে আবার আসবে। আমি রসুলুল্লাহ (সা.)-এর কথায় বুঝলাম যে সে সত্যিই আবার আসবে। আমি পাহারা দিতে থাকলাম। সে খাদ্য ওঠাতে থাকল। আমি আবার তাকে ধরে ফেলে বললাম, তোমাকে আমি রসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে নিয়ে যাব। সে আবার ওই কথাই বলল, আমাকে ছেড়ে দিন, আমি খুবই অভাবী। তার প্রতি আমার দয়া হলো। কাজেই তাকে ছেড়ে দিলাম। সকালে আমাকে রসুলুল্লাহ (সা.) বললেন, হে আবু হুরায়রা! তোমার রাতের বন্দীটি কী করেছে? আমি বললাম, হে আল্লাহর রসুল! সে অভাবের অভিযোগ করায় আমি তাকে দয়া করে ছেড়ে দিয়েছি। রসুলুল্লাহ (সা.) বলেন, সে তোমাকে মিথ্যা বলেছে। সে আবার আসবে। আমি আবার তৃতীয় রাতে পাহারা দিই। এরপর সে এসে খাদ্য ওঠাতে থাকল। আমি তাকে বলি, এটাই তৃতীয়বার এবং এবারই শেষ। তুমি বারবার বলছ আর আসবে না, অথচ আবার আসছ। সুতরাং তোমাকে আমি রসুলুল্লাহ (সা.)-এর কাছে নিয়ে যাব। তখন সে বলল, আমাকে ছেড়ে দিন। আমি আপনাকে এমন কতগুলো কথা শিখিয়ে দিচ্ছি যার মাধ্যমে আল্লাহ আপনার উপকার সাধন করবেন। আমি বললাম, ওইগুলো কী? সে বলল, “যখন আপনি বিছানায় শয়ন করবেন তখন আয়াতুল কুরসি শেষ পর্যন্ত পড়বেন। এতে মহান আল্লাহ আপনার রক্ষক হবেন এবং সকাল পর্যন্ত আপনার সামনে কোনো শয়তান আসতে পারবে না।” তারা ভালো জিনিসের খুবই লোভী। এরপর (আবু হুরায়রা থেকে এ কথাগুলো শোনার পর) নবী করিম (সা.) বললেন, সে চরম মিথ্যাবাদী হলেও এটা সত্যই বলেছে। হে আবু হুরায়রা! তুমি তিন রাতে কার সঙ্গে কথা বলেছ তা কি জান? আমি বললাম, না। তিনি বললেন, সে শয়তান।’ বুখারি, ফাতহুল বারি।

আয়াতুল কুরসি পাঠ মহান আল্লাহকে সন্তুষ্ট রাখার উপায়। আমরা প্রতিদিন মহান স্রষ্টার গুণাবলিসংবলিত এ আয়াতটি বেশি বেশি পাঠের চেষ্টা করি।
লেখক : ইসলামবিষয়ক গবেষক।

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি