1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
বৃহস্পতিবার, ২০ জানুয়ারী ২০২২, ১০:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনামঃ
দুর্নীতি রোধে ডিসিদের সহযোগিতা চাইলো দুদক জুয়া আইনে শাস্তি বাড়ানোর প্রস্তাব ডিসিদের ধানুশের বাবা বললেন, ‘বিবাহবিচ্ছেদ নয়, ঝগড়া হয়েছে’ ‘ব্ল্যাক টাইগার’ ও ‘ভেতারান’ রিমেকে সালমান লক্ষ্য অর্জন ও অদক্ষতার অজুহাতে ব্যাংকারদের চাকরিচ্যুত করা যাবে না ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার পরপরই গ্রেপ্তার নয়: আইনমন্ত্রী প্রথমবারের মতো দেশে এলো এক ডোজের জনসন টিকা হাইকোর্টে তাহসানের আগাম জামিন এমন কোনো দেশ নেই এনকাউন্টার ঘটে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী স্বাস্থ্যবিধি অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ শান্তিরক্ষা মিশন থেকে র‌্যাবকে বাদ দিতে জাতিসংঘে চিঠি করোনায় ৪ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ১০৮৮৮ খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র করোনায় আক্রান্ত টাইগার যুবাদের সামনে জয়ে ফেরার সুযোগ আইসিসির বর্ষসেরা ওয়ানডে দলে ৩ বাংলাদেশি

সৈয়দপুরে রেলওয়ে পুলিশ সুপারের বাসভবনে ৩০ ঘুঘু’র নিরাপদ বসবাস

শাহজাহান আলী মনন
  • আপডেট : সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৫৮ বার দেখা হয়েছে
সৈয়দপুর (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ নীলফামারী সৈয়দপুর রেলওয়ে জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) এর বাসভবনে ৩০টি ঘুঘু পাখি বাসা বেঁধেছে। পাখিগুলো নিরাপদে সেখানে ডিমও পেড়েছে। ঘুঘুদের বসবাসে যেন কােন প্রকার ব্যাঘাত না ঘটে সেইজন্য পরিবেশ ও প্রকৃতি নিরবচ্ছিন্ন এবং নিরিবিলি রাখতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপও নেয়া হয়েছে। ফলে এক প্রকার অভয়ারণ্যে পরিনত হয়েছে গাছপালা ঘেরা ব্রিটিশ আমলের তৈরি রেলওয়ের ওই বাংলোটি।
সৈয়দপুর শহরের রেলওয়ে অফিসার্স কলোনিতে প্রায় দুই একর জমির ওপর বিশাল বাসভবন পুলিশ সুপারের। এর দক্ষিণে রেলওয়ে অফিসার্স ক্লাব। আর পূর্বপাশে দেশের বৃহত্তম সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানার বিভাগীয় তত্ত্বাবধায়কের (ডিএস) বাসভবন। মাঝ দিয়ে গেছে বিমানবন্দর সড়ক। ওই বাসভবনে স্ত্রী-সন্তানসহ পুলিশ সুপারের বসবাস।
ভবনের পুরো প্রাঙ্গণজুড়ে মনোরম বাগান। সেখানে রয়েছে বেশ কিছু লিচু ও বাহারি ফুলের গাছ। ভবনের সামনে গোলঘর, গেট, লিচু বাগান, শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ যন্ত্রের সবখানে বাসা বেঁধেছে ঘুঘু পাখি।
পুলিশ সুপার (এসপি) সিদ্দিকী তাঞ্জিলুর রহমান জানান, ভবনের ৩০টি স্থানে বাসা বেঁধেছে ঘুঘু পাখি। এ কারণে প্রচণ্ড গরম থাকা সত্ত্বেও এসি ছাড়তে পারছি না। লিচু বাগানেও কীটনাশ স্প্রে করা যাচ্ছে না। ওই পাখিগুলো যাতে স্বস্তিতে ডিম পাড়তে পারে এ জন্য বাসভবন ও এর প্রাঙ্গণজুড়ে কড়া সতর্ক পাহারা বসানো হয়েছে। রাখা হয়েছে সম্পূর্ণ কোলাহলমুক্ত।
তিনি বলেন, আমার কাছে বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে আসা দর্শনার্থীদের সাথেও গোলঘরে বসা হচ্ছে না। কেউ উচ্চস্বরে কথা বলছে না। লিচু বাগানে ফল এসেছে। এ সময় কীটনাশক স্প্রে করতে হয়; কিন্তু আমি আমার লোকদের তাও নিষেধ করেছি।
পাখিপ্রেমী পুলিশ সুপার আরও বলেন, ছেলেবেলায় এয়ারগান দিয়ে কত পাখি মেরেছি। অথচ এখন দেখুন পাখিদের জন্য খুব মায়া হচ্ছে। ওদের নিরাপত্তার কথা ভেবে সপরিবারে কষ্ট করছি।
এ নিয়ে কথা হয় পাখি ও পরিবেশবাদী সংগঠন সেতুবন্ধনের সভাপতি আলমগীর বলেন, বিষয়টি আমরা জেনেছি। আমরা সার্বিকভাবে এসপি সিদ্দিকী তাঞ্জিলুর রহমানকে এ বিষয়ে সহযোগিতা করব।
এদিকে এসপি’র বাসভবনে ঘুঘুর বসবাসের খবর শুনে অনেকেই আসছেন একনজর দেখতে। কিন্তু গেটের বাইরে থেকেই তাদের মনের আশ মেটাতে হচ্ছে। এমনকি সংবাদকর্মীদেরকেও দূরে থেকেই অবলোকন করতে হয়েছে এ মনোরম দৃশ্য। কোন কারণেই যাতে পাখিগুলোর সমস্যা না হয় সেদিকে বিশেষ দৃষ্টি রাখায় এমনটা করতে বাধ্য হচ্ছেন পুলিশ সুপার মহোদয়। একারণে তিনি সকলকে ব্যাপারটা ইতিবাচকভাবে নেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন। (ছবি আছে)

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি