1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : জাতীয় অর্থনীতি : জাতীয় অর্থনীতি
  3. [email protected] : lalashimul :
সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১, ০৫:৫০ অপরাহ্ন

অর্থ চুরির দায়ে বেলাব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানকে অপসারণ

খায়রুল ইসলাম
  • আপডেট : সোমবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৯৫ বার দেখা হয়েছে

নরসিংদী প্রতিনিধিঃ নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও বেলাব উপজেলা আ’লীগের সভাপতি মো: সমশের জামান ভূইয়া (রিটন)কে দুইজন ভাইস চেয়ারম্যানের সম্মানীভাতা, ভ্রমনভাতা ও আপ্যায়ন ভাতার অর্থ আত্মসাৎ করার অভিযোগ সরকারের জনস্বার্থে তাকে তার স্বীয় পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে। গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ইং তারিখে রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগ উপজেলা-২ শাখার উপসচিব-মোহাম্মদ সামছুল হক স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ নির্দেশ প্রদান করা হয়। যাহার স্বারক নং-৪৬.০০.০০০০.০৫৪.২৭.০১০.২০-১০৮, তাং-১৪/২/২১ইং। প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, বেলাব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: সমশের জামান ভূইয়া (রিটন) বেলাব উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো: মনিরুজ্জামান ভূইয়া ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শারমীন আক্তার খালেদার সম্মানীভাতা, ভ্রমণভাতা ও আপ্যায়ন ভাতার মোট ৭৪ হাজার ৩শত ৬৬ টাকার ৫টি চেকের মাধ্যমে নিয়ম বহির্ভূতভাবে উত্তোলন পূর্বক আত্মসাৎ করেছেন। যেহেতু উপজেলা পরিষদ আইন ১৯১৬ (উপজেলা পরিষদ সংশোধন আইন ২০১১ ধারা সংশোধিত) এবং ১৩ (১) (গ) ধারা লংঘিত হয়েছে। এমতাবস্থায় নরসিংদী জেলার বেলাব উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো: সমশের জামান ভূইয়া (রিটন) কর্তৃক নিয়ম বহির্ভূতভাবে আত্মসাতের বিষয়টি বিভাগীয় কমিশনার এর তদন্তে প্রমানিত হওয়ায় উপজেলা পরিষদ আইন ১৯১৮ (উপজেলা পরিষদ সংশোধিত ২০১১ ধারা সংশোধিত এর ১৩ (২) ধারা উপজেলা পরিষদ সদস্য ও মহিলা সদস্যদের (অপসারণ, অনাস্থা ও পদ শূণ্যতা) বিধিমালা -২০১৬ মোতাবেক তাকে স্বীয় পদ থেকে অপসারণ করে পদটি শূণ্য ঘোষণা করা হলো এবং বেলাব উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও প্যানেল চেয়ারম্যান (১) মো: মনিরুজ্জামান ভূইয়া জাহাঙ্গীরকে উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা জন্য সার্বিক ক্ষমতা প্রদান করা হলো। এ আদেশ জনস্বার্থে জারী করা হলো এবং অবিলম্বে তা কার্যকর হবে।
বিষয়টি নিয়ে সদ্য বহিষ্কৃত উপজেলা চেয়ারম্যান সমশের জামান ভূইয়া রিটন বলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানরা নির্বাচনের সময় তাদের প্রতিশ্রুতি মোতাবেক এক মাসের সম্মানী পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর মাজারে অনুদান দিয়েছেন। আমি সেটা উত্তোলন করে মাজারের উন্নয়নে খরচ করেছি। কিন্তু কোনো টাকা আত্মসাৎ করিনি। ওই মাজারের প্রধান খাদেম আমি। এখন তারা ষড়যন্ত্র করে রাজনৈতিক ফায়দা লুটতে চায়। আমি একাধিকবার এই টাকা ফেরতও দিতে চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা নেয়নি।

 

Please Share This Post in Your Social Media

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© ২০২০ দৈনিক জাতীয় অর্থনীতি